ছবি: রয়টার্স

ছবি: রয়টার্স

গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে সহজে গন্তব্যের দূরত্বসহ পথের নির্দেশনা জানা যায়। এমনকি রাস্তায় ট্রাফিক পরিস্থিতিসহ গন্তব্যে পৌঁছানোর সম্ভাব্য সময় সম্পর্কেও ধারণা পাওয়া সম্ভব। বিনা মূল্যে এ সুবিধা পাওয়া গেলেও সার্চ করা তথ্যসহ ব্যবহারকারীদের গন্তব্যের সব তথ্য সংরক্ষণ করে থাকে গুগল ম্যাপস। তবে চাইলেই গুগল ম্যাপসের ‘ইনকগনিটো’ মোড ব্যবহার করে তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ করা সম্ভব। গুগল ম্যাপসে ইনকগনিটো মোড চালুর পদ্ধতি দেখে নেওয়া যাক।

গুগল ম্যাপসের তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ করার দুটি উপায় :

১. ইনকগনিটো মোড ব্যবহার:

  • মোবাইল অ্যাপে:
    • অ্যাপটি খুলুন এবং আপনার প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন।
    • “Turn on Incognito mode” (ইনকগনিটো মোড চালু করুন) বিকল্পটি নির্বাচন করুন।
    • “Start” (শুরু করুন) ক্লিক করুন।
  • ডেস্কটপ ওয়েবসাইটে:
    • “Menu” (মেনু) > “Your places” (আপনার স্থান) > “Incognito mode” (ইনকগনিটো মোড) ক্লিক করুন।

২. ওয়েব ও অ্যাপের “Location History” (অবস্থান ইতিহাস) বন্ধ করা:

  • মোবাইল অ্যাপে:
    • অ্যাপটি খুলুন এবং আপনার প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন।
    • “Settings” (সেটিংস) > “Location” (অবস্থান) > “Location History” (অবস্থান ইতিহাস) ক্লিক করুন।
    • “Location History is off” (অবস্থান ইতিহাস বন্ধ) বিকল্পটি নির্বাচন করুন।
  • ডেস্কটপ ওয়েবসাইটে:
    • “Menu” (মেনু) > “Your places” (আপনার স্থান) > “Activity controls” (কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ) ক্লিক করুন।
    • “Location History” (অবস্থান ইতিহাস) > “Turn off” (বন্ধ করুন) ক্লিক করুন।

মনে রাখবেন:

  • ইনকগনিটো মোড ব্যবহার করলে আপনার অবস্থান এবং অনুসন্ধান ইতিহাস Google-এ সংরক্ষণ হবে না।
  • “Location History” (অবস্থান ইতিহাস) বন্ধ করলে Google আপনার অবস্থান ট্র্যাক করবে না, তবে এটি আপনার অতীতের অবস্থান ডেটা ডিলিট করবে না।
  • আপনি যদি “Location History” (অবস্থান ইতিহাস) বন্ধ করেন, তবে Google Maps-এর কিছু বৈশিষ্ট্য সঠিকভাবে কাজ করবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *